রোযা অবস্থায় স্ত্রীর মুখের লালা গলায় চলে যাওয়া ও জড়াজড়ির সময় বীর্যপাত হলে হুকুম কি?


সুওয়ালঃ


আসসালামু আলাইকুম। রোজা অবস্থায় স্ত্রীর ঠোটে চুমু দেওয়ার ফলে যদি একের লালা অন্যের মুখে চলে যায় তাতে কী রোজা ভেঙে যাবে?


জাওয়াবঃ


মুখে যাবার পর যদি তা গিলে ফেলা হয়, তাহলে রোযা ভেঙ্গে যাবে। পরবর্তীতে কাযা ও কাফফারা উভয়ই আবশ্যক হবে।

ومنه أى من موجب الكفارة ابتلع بزاق زوجته أو بزاق صديقه لأنه يتلذذبه (حاشية الطحطاوى على مراقى الفلاح-667)

ولو ابتلع بزاق غيره فسد صومه بغير كفارة إلا إذا كان بزاق صديقه فحينئذ تلزمه الكفارة، كذا فى المحيط (الهندية-1/203)

وإن ابتلع بزاق غيره فسد صومه بغير كفارة إلا إذا كان بزاق صديقه فحينئذ تلزمه الكفارة لأن الناس قلما يعافون ببزاق أصقائهم (الفتاوى التاتارخانية-3/383


সুওয়ালঃ


রোজা অবস্থায় স্ত্রীকে চুমু ও জড়াজড়ি করার সময় বীর্যপাত হয়েছে যদিও সহবাস করার ইচ্ছা ছিল না এবং সহবাসও করিনি তাহলে রোজা কাযা করলেই হবে নাকি কাফফারা আদায় করতে হবে?


জাওয়াবঃ


রোযা ভেঙ্গে গেছে। কাযা আদায় করতে হবে। কাফফারা লাগবে না।

أَنَّ ابْنَ مَسْعُودٍ قَالَ ” فِي الْقُبْلَةِ لِلصَّائِمِ قَوْلًا شَدِيدًا، يَعْنِي يَصُومُ يَوْمًا مَكَانَهُ “. وَهَذَا عِنْدَنَا فِيهِ إِذَا قَبَّلَ فَأَنْزَلَ (السنن الكبرى للبيهقى-8106

أَنَّ رَجُلًا لَقِيَ ابْنَ مَسْعُودٍ وَهُوَ بِالتَّمَادِينِ فَسَأَلَهُ عَنْ صَائِمٍ قَبَّلَ امْرَأَتَهُ؟ فَقَالَ: «أَفْطَرَ» (مصنف ابن ابى شيبة، رقم-9412

ولو أنزل بقبلة أو لمس فعليه القضاء دون الكفارة الخ (هداية، كتاب الصوم، باب مايوجب القضاء والكفارة-1/217

 

ফতওয়া প্রদান
লুৎফুর রহমান ফরায়েজী

Leave a Reply

Your email address will not be published.

%d bloggers like this: