১৪০০ বছর আগে কোরআন একি বলছে!

আলকুরআনের আলো

আতিকুর রহমান : আমরা যারা জন্মসূত্রে মুসলমান তাদের অনেকেই হয়তো জানি -আল্লাহ তা’য়ালা মানুষকে সৃষ্টি করেছেন মাটি থেকে। এখানে প্রশ্ন করার অবকাশ রয়েছে মাটি আর আমাদের শরীর কি এক হলো? মাটিতো মাটিই, আর আমাদের দেহ তো গোস্ত, চামড়া ইত্যাদির সম্মিলন, দু’টো কি করে এক হলো। বিশেষ করে নাস্তিকরা তো হেসেই বলবেঃ দেখো, এই মোল্লার দল কি বিশ্বাস করছে!

আসুন প্রথমেই দেখি মহান রব্বুল আ’লামিন তার পবিত্র কালামে এ বিষয়ে কি বলেনঃ

১) আপনি তাদেরকে জিজ্ঞেস করুন, তাদেরকে সৃষ্টি করা কঠিনতর, না আমি অন্য যা সৃষ্টি করেছি? আমিই তাদেরকে সৃষ্টি করেছি এঁটেল মাটি থেকে। (সূরা আস-সাফফাত:১১)

২) যখন আপনার পালনকর্তা ফেরেশতাগণকে বললেন, আমি মাটির মানুষ সৃষ্টি করব। (সূরা ছোয়াদ:৭১)

৩) আমি মানুষকে মাটির সারাংশ থেকে সৃষ্টি করেছি। (সূরা আল মু’মিনূন:১২)

বিজ্ঞান গবেষণা করে বের করেছে মানবদেহের প্রায় ৯৯% ভাগ গঠিত হয়েছে যে রাসায়নিক উপাদানসমূহ দিয়ে তা হলঃ অক্সিজেন, কার্বন, হাইড্রোজেন, নাইট্রোজেন, ক্যালসিয়াম এবং ফসফরাস। বাকী এক ভাগের ০.৮৫% গঠিত হয়েছে যে উপদা সমুহ দিয়ে তা হল পটাসিয়াম, সালফার, সোডিয়াম, ক্লোরিন এবং ম্যাগনেসিয়াম। সব মিলে ১১টি উপাদানের নাম উল্লেখ করা হয়েছে।

আসুন এবার দেখি মাটির মাঝে এ ১১টি উপাদান রয়েছে কি না। আমরা জানি স্থানভেদে মাটির উপদানসমূহের তারতম্য হতে পারে। কিন্তু আমাদের দেখার বিষয় মানবদেহের মৌলিক উপাদানসমূহ মাটির মৌলিক উপাদানসমূহে রয়েছে কি না।

বিজ্ঞান বলছে মাটিতে মুলত যে উপাদানসমূহ রয়েছে তা হলঃ অক্সিজেন, কার্বন, হাইড্রোজেন, নাইট্রোজেন, ক্যালসিয়াম, ফসফরাস, পটাসিয়াম, সালফার, সোডিয়াম, ক্লোরিন, ম্যাগনেসিয়াম, আইরন, বোরন, ম্যাংগানিজ, জিংক, মলিবেডনাম, কপার, ফটোসিন্থেসিস।

কি দাঁড়ালো তাহলে। মানবদেহের উপাদানসমূহ পুরোটাই মাটি থেকে নেয়া। সুবহান আল্লাহ। ১৪০০ বছর পূর্বে যখন বিজ্ঞান বলে কিছু ছিলো না, ছিলো না কোন ল্যাবরেটরি, ছিলো না রাসায়নিক পদার্থের কোন পরিচিত, তখন কুরআন শিখাচ্ছে বিজ্ঞান। দিচ্ছে এমন সব তথ্য যা তখনকার মানুষ কল্পনাও করেনি। তবুও কি অবিশ্বাসীরা বিশ্বাস স্থাপন করবেনা। আর আমরা আমাদের বিশ্সাসকে দৃঢ় করবো না।

ফেসবুক থেকে নেয়া

আপনার মন্তব্য