নামাযে বাজে চিন্তা আসলে করণীয় কী? নামাযরত অবস্থায় ওজু চলে গেছে মনে হলে কী করবে?

 


সুওয়াল


একজন ব্যক্তি নিম্নলিখিত ব্যাপারগুলো নিয়ে সমস্যায় আছেন। সমাধান জানিয়ে বাধিত করবেন।

১) নামায আদায়ের সময় প্রায়ই বিভিন্ন খারাপ শব্দ/ বাজে কথা মনের মধ্যে চলে আসে। নামাযের বাইরেও মাঝে মাঝে এমন হয়। তিনি এটি নিয়ে মানসিক যন্ত্রণায় থাকেন।

২) নামাযে দাঁড়ালে প্রায়ই মনে হয় যে, বাতাস বের হওয়ার কারণে ওযু ভেঙে গেছে। ফলে নামায ছেড়ে বারবার অযু করতে যান। কিন্তু এরকম হওয়ার মত কোন শারীরিক সমস্যা নেই।


জাওয়াব


 

নামাযের বাহিরে খারাপ কথা মনে আসলেই কবর মৃত্যুর কথা স্মরণ করুন। সাথে এটা মনে রাখুন যে, কেউ না জানুক, আল্লাহ রাব্বুল আলামীন আপনার সব কাজ, সকল অনুভূতি শুনছেন, দেখছেন। বেশি বেশি করে বুজুর্গদের লেখা কিতাব পড়তে পারেন। যেমন আশরাফ আলী থানবী রহঃ এর লেখা কিতাব। হাকীম আখতার সাহেব রহঃ এর লেখা কিতাব। সাথে তাবলীগী কাজের সাথে বা হক্কানী কোন সংগঠন যেমন চরমোনাই হুজুরের ইসলামী আন্দোলন ইত্যাদির সাথে জড়িত হতে পারেন। দ্বীনী কাজে মগ্ন থাকলে ইনশাআল্লাহ দেখবেন এ সমস্যা দূরীভূত হয়ে যাবে।

আর নামাযের মাঝে সুন্নতের প্রতি খেয়াল করে নামায পড়ুন, আর সাথে সাথে স্মরণ করুন যে আল্লাহ তাআলা আপনাকে দেখছেন। আপনি আল্লাহ রাব্বুল আলামীনের কুদরতী পায়ে সেজদা করছেন। তাহলে নামাযে কু-ধারনা আসবে না আশা করি।

রাসূল সা: ইরশাদ করেছেন, أَنْ تَعْبُدَ الله كَأَنَّكَ تَرَاهُ ، فَإِنَّكَ إِنْ لا تَكُنْ تَرَاهُ

“ইবাদত এমনভাবে কর, যেন তুমি আল্লাহকে দেখছো, যদি এমন অবস্থা তৈরি না হয়, তাহলে মনে করবে, আল্লাহ তাআলা তোমাকে দেখছেন”। {সুনানে আবু দাউদ, হাদীস নং-৪১২, সুনানে ইবনে মাজাহ, হাদীস নং-৬৪, সুনানে তিরমিজী, হাদীস নং-১২০, সহীহ বুখারী, হাদীস নং-৫০, সহীহ মুসলিম, হাদীস নং-২৯}

আর নামাযরত অবস্থায় যদি সুনিশ্চিতভাবে জানা না যায় যে, বায়ু বের হয়েছে। তাহলে নামায ছেড়ে দেয়ার কোন মানে হয় না। বায়ু বের হওয়ার নিদর্শন রাসূল সা: বলে দিয়েছেন দু’টি। তাহলো, হয়তো গন্ধ বের হবে। নতুবা আওয়াজ বের হতে হবে। এছাড়াও যদি সুনিশ্চিত ধারণা হয় যে, বায়ু বের হয়ে গেছে। তাহলেই কেবল নামায ছেড়ে অজু করতে হবে। শুধু ধারণার উপর নামায ছাড়া যাবে না।

أَنَّ مُحَمَّدَ بْنَ عَمْرِو بْنِ عَطَاءٍ حَدَّثَهُ قَالَ رَأَيْتُ السَّائِبَ يَشُمُّ ثَوْبَهُ فَقُلْتُ لَهُ مِمَّ ذَاكَ فَقَالَ إِنِّي سَمِعْتُ رَسُولَ اللَّهِ صَلَّى اللَّهُ عَلَيْهِ وَسَلَّمَ يَقُولُ لَا وُضُوءَ إِلَّا مِنْ رِيحٍ أَوْ سَمَاعٍ

হযরত মুহাম্মদ বিন আমর বিন আতা বলেন: আমি একদা সায়েব বিন ইয়াজিদ রা: কে কাপড়ের ঘ্রাণ নিতে দেখে জিজ্ঞেস করলাম এটা কি? তখন তিনি বললেন: রাসূল সা: ইরশাদ করেছেন: বাতাস বা [বাতকর্মের] আওয়াজ ছাড়া অজু করা আবশ্যক হয় না । {মুসনাদে আহমাদ, হাদীস নং-১৫৫০৬, সুনানে ইবনে মাজাহ, হাদীস নং-৫১২, মুসনাদুল হারেস, হাদীস নং-৮৩, কানযুল উম্মাল, হাদীস নং-২৬২৭৭, মুসান্নাফ ইবনে আবী শাইবা, হাদীস নং-৭৯৯৮}


ফতওয়া প্রদান
লুৎফুর রহমান ফরায়েজী

আপনার মন্তব্য