দাড়ি কতটুকু রাখতে হবে? এক মুষ্টির কম দাড়ি রাখার হুকুম কি? শাফেয়ী মাজহাব কি বলে?

মুফতি লুৎফুর রহমান ফরায়েজী

আহলুস সুন্নাহ ওয়াল জামাআতের সকল ইমামগণের সর্বসম্মতি ক্রমে দাড়ি লম্বা রাখা ওয়াজিব এবং তা কমপক্ষে এক মুষ্টি পরিমাণ হতে হবে । এ ব্যাপারে চার মাযহাবের সকল ইমামগণের ইজমা প্রতিষ্ঠিত হয়েছে।

অতএব যারা শাফেয়ী মাজহাবের কথা বলে দাড়ি ছোট করে থাকেন, তারা মূলত ইমাম শাফেয়ীকে অপবাদ দিয়ে থাকেন। আল্লাহ তাদের হিদায়াত করুন।

কোরআনের আলোকে:

কোরআন শরীফে সরাসরি দাড়ি রাখার কথা বলা হয়নি তবে হারুন আঃ এর ঘটনায় দাড়ির কথা উল্লেখ রয়েছে । যথা: আল্লাহ তা’য়ালা ইরশাদ করেন:- قَالَ يَا ابْنَ أُمَّ لَا تَأْخُذْ بِلِحْيَتِي

তথা হে আমার আপন ভাই! আপনি আমার দাড়ি ধরবেন না। {সূরা ত্বহা-৯৪}

এ আয়াত দ্বারা একথাও বুঝা যায় যে, হযরত হারুন আঃ এর দাড়ি এক মুষ্টির চেয়ে কম ছিল না। কারণ এক মুষ্টির চেয়ে কম দাড়িতে মুঠ করে ধরা যায় না।

হাদীসের আলোকে:

عن ابن عمر : عن النبي صلى الله عليه و سلم قال ( خالفوا المشركين وفروا اللحى وأحفوا الشوارب . وكان ابن عمر إذا حج أو اعتمر قبض على لحيته فما فضل أخذه

হযরত ইবনে ওমর রা: থেকে বর্ণিত। রাসূল সা: ইরশাদ করেছেন-তোমরা মুশরিকদের বিরোধিতা কর। দাড়ি লম্বা কর। আর গোঁফকে খাট কর।

আর ইবনে ওমর রা: যখন হজ্ব বা ওমরা করতেন, তখন তিনি তার দাড়িকে মুঠ করে ধরতেন, তারপর অতিরিক্ত অংশ কেটে ফেলতেন। {সহীহ বুখারী, হাদীস নং-৫৫৫৩}

দাড়ি লম্বা রাখার ব্যাপারে হাদীসে বিভিন্ন শব্দ এসেছে। যেমন-

১-إعفاء اللحى [ইফা] সহীহ ইবনে হিব্বান, হাদীস নং-৫৪৭৫

২- وأعفوا اللحى [উফু] সহীহ বুখারী, হাদীস নং-৫৫৫৪

৩-وَأَرْخُوا اللِّحَى [আরখু] সহীহ মুসলিম, হাদীস নং-৬২৬

৪-وَأَوْفُوا اللِّحَى [আওফু] সহীহ মুসলিম হাদীস নং-৬২৫

৫- وَفِّرُوا اللِّحَى [ওয়াফফিরু] সহীহ বুখারী, হাদীস নং-৫৫৫৩

দাড়ি কেটে ফেলার নির্দেশ কোন হাদীসে নেই। তাই যেসব লোক বলেন যে, এক মুষ্টি রাখতে হবে একথা দলিল চায়, তাদের বলুন যে, দাড়ি যে তারা কেটে ফেলেন একথা তারা পেলেন কোত্থেকে? হাদীস অনুযায়ী যদি তারা দাড়ি রেখে থাকেন, তাহলে দাড়ি কোনদিনও কাটতে পারবেন না। কারণ দাড়ি কাটার কোন বর্ণনা রাসূল সা: থেকে প্রমাণিত নেই।

তাই এখানে লক্ষণীয় হল, এ হাদীসের মর্মার্থ সাহাবায়ে কেরাম কী বুঝেছেন? মনগড়া বুঝলে হবে না। কারণ সাহাবারা হলেন রাসূল সা: এর হাদীসের আমলী নমুনা। আমরা বুখারীর হাদীসটির দিকে তাকালেই এ ব্যাপারে সমাধান পেয়ে যাই-

হযরত ইবনে ওমর রা: থেকে বর্ণিত। রাসূল সা: ইরশাদ করেছেন-তোমরা মুশরিকদের বিরোধিতা কর। দাড়ি লম্বা কর। আর গোঁফকে খাট কর।

আর ইবনে ওমর রা: যখন হজ্ব বা ওমরা করতেন, তখন তিনি তার দাড়িকে মুঠ করে ধরতেন, তারপর অতিরিক্ত অংশ কেটে ফেলতেন। {সহীহ বুখারী, হাদীস নং-৫৫৫৩}

এখানে যদিও হজ্ব ও উমরার সময়ের কথা বলা হয়েছে ,কিন্তু মুহাদ্দিসীনরা বলেন তিনি তা সব সময়ই করতেন । এ ছাড়াও আবু দাউদ ও নাসাঈর বর্ণনায় ইবনে উমরের (রা:) হজ্ব ও উমরা ছাড়া অন্য সময়েও দাড়ি এক মুঠের বেশীটুকু কেটে ফেলার কথা রয়েছে।
(ফাতহুল বারী: খণ্ড-১০ পৃ. ৩৬২)

কোন হাদীসেই সরাসরি দাড়ি এক মুষ্টি পরিমাণ রাখার কথা উল্লেখ নেই , শুধুমাত্র লম্বা করার কথা উল্লেখ রয়েছে। তবে সাহাবায়ে কেরাম থেকে এক মুষ্টি পরিমাণ দাড়ি রাখা প্রমাণিত আছে । দাড়ি সম্পর্কিত হাদীস বর্ণনাকারী সাহাবী আবু হুরাইরা ইবনে উমর (রা:) প্রমুখ গণ দাড়ি এক মুষ্টি পরিমাণ রাখতেন । তাই এ ব্যাপারে তাঁদের আমল আমাদের জন্য দলীল । এর কারণ হল – যে বিষয়ে হাদীসে সরাসরি পাওয়া যায় না সে বিষয়ে সাহাবায়ে কেরামের আমল শরীয়তের প্রমাণ হিসেবে সাব্যস্ত হয়। কেননা তারা হলেন হাদীসে রাসূলের (সা:) আমলী নমুনা।
সুতরাং দাড়ি কমপক্ষে এক মুষ্টি পরিমাণ হওয়া প্রত্যক্ষভাবে সাহাবায়ে কেরাম থেকে প্রমাণিত হলেও পরোক্ষভাবে তা রাসূল (সা:) থেকেই প্রমাণিত ।

হযরত উমর (রা:) তো নিজেই এক ব্যক্তির দাড়ি ধরে এক মুঠের অতিরিক্ত অংশটুকু নিজেই কেটে দিয়েছিলেন । (ফাতহুল বারী: খণ্ড-১০ পৃ. ৩৬২)
ইবনে উমর (রা:) ছিলেন রাসূলের (সা:) আদর্শের পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে এবং পূর্ণ অনুসারী । তাই তিনি যা করেছেন তা রাসূল (সা:) থেকেই জেনে-শুনে করেছেন ।

উপরোক্ত দু’জন মহান সাহাবী ব্যতীত আবু হুরাইরা ,জাবির (রা:) প্রমুখ সাহাবী থেকে ও দাড়ির এক মুঠের অতিরিক্ত অংশটুকু কেটে ফেলার কথা পাওয়া যায় । এ থেকে দাড়ি কমপক্ষে এক মুঠ পরিমাণ রাখার বিষয়টি প্রমাণিত হয়।

দাড়ি না রাখা, মুন্ডিয়ে ফেলা বা এক মুষ্টির কম রাখা হারাম ও কবিরা গুনাহ। যে দাড়ি মুন্ডায় বা এক মুঠের চেয়েও ছোট করে ফেলে তার আমল নামায় পুনরায় দাড়ি এক মুঠ পরিমাণ হওয়ার পূর্ব পর্যন্ত গুনাহ লিখা হতে থাকে। কেননা শরীয়তের হুকুম হল-দাড়ি কমপক্ষে এক মুঠ পরিমাণ রাখা। তাই এর চেয়ে দাড়ি ছোট করে ফেললে বা মুন্ডিয়ে ফেললে যতক্ষণ পর্যন্ত দাড়ি এক মুঠ পরিমাণ না হবে ততোক্ষণ পর্যন্ত সে শরীয়তের হুকুম অমান্যকারী সাব্যস্ত হবে এবং তার নামে গুনাহ লিখা হতে থাকবে । অন্যান্য গুনাহ সাময়িক ও অস্থায়ী, কিন্তু দাড়ি ছোট করা বা মুন্ডানোর গুনাহ দীর্ঘস্থায়ী, যে ব্যক্তি দাড়ি মুন্ডায় বা ছোট করে (এক মুঠের চেয়ে ) সে ফাসিক।

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

%d bloggers like this: