আপনার স্বামী পরকীয়ায় লিপ্ত, কী করবেন জেনে নিন

প্রশ্ন: আমার স্বামী অন্য এক নারীর প্রতি আসক্ত। অনেক টাকা সে তার পেছনে খরচ করে। আমার সকল চাহিদা পূরণ করছে। তাই আমি তা না জানার ভান করছি। কি করব?

উত্তর : আপনি শান্তি চাইলে না জানার ভান করতেই থাকুন। যদি আপনার স্বামীর এ আসক্তি বৈধ উপায়ে হয়ে থাকে, তাহলে আপনার ক্ষোভ কিছু কম থাকা ভালো। দেশীয় আইনে আপনার অনুমতি ছাড়া দ্বিতীয় বিবাহ করলে আপনার স্বামীকে আপনি জেল জরিমানা করতে পারেন। এতে সংসারে সুখ ও মানসিক শান্তি ফিরিয়ে আনা যায় না। বৃটেনের এ আইনটি কেমন তাও দেখতে হবে। আমাদের দেশে অবৈধ সম্পর্ক বা পরকীয়া আইনে তেমন দোষনীয় নয়। কিন্তু স্ত্রীকে না জানিয়ে দ্বিতীয় বিবাহ করা মারাত্মক অপরাধ। যদিও এটি স্বামী-স্ত্রীর পারস্পরিক আন্ডারস্যান্ডিংয়ের ব্যাপার।

শরীয়তে আপনার সাথে পূর্ণাঙ্গ সদাচরণ, দায়িত্বপালন সাপেক্ষে স্বামী আপনার অনুমতি ছাড়াই দ্বিতীয় বিবাহ করতে পারে। তবে তার ওপর কঠোর নির্দেশ হলো, দু’জনের মধ্যে কাটায় কাটায় সমতা বজায় রাখা। পবিত্র কোরআনে আল্লাহ বলে দিয়েছেন, ‘যদি তোমরা দু’জনের মধ্যে কাটায় কাটায় সমতা ও সুবিচার করতে পারবে না বলে আশংকা কর, তাহলে এক বিবাহের বেশি করো না।’ সূরা নিসা।

এরপর আসুন দ্বিতীয় অবস্থায়, মানে আপনার স্বামী যদি অবৈধ আসক্তিতে পরে থাকেন তাহলে এরচেয়ে মারাত্মক পাপাচার আর নেই। এটি মেনে নিয়ে সংসার করা আপনার জন্য জায়েজ। যদি আপনাকে কোনো কষ্ট না দেয়। তাহলে ‘না জানার ভান’ করাও জায়েজ।

শান্তি বজায় রাখার জন্য ইগনোর করে যান। বুদ্ধিমত্তার সাথে তাকে ধীরে ধীরে এ অন্যায় থেকে ফিরিয়ে আনুন। তাকে সন্দেহ বা দুর্ব্যবহারের চেয়ে কৌশলে ফিরিয়ে আনাই অধিক কার্যকর। এসব একসময় কেটে যায়। মানুষ তার মূল সংসারেই ফিরে আসে। প্রয়োজন ধৈর্য, কৌশল, দোয়া ও পরম সহিষ্ণুতার।

এখানে গুনাহ থেকে তাকে ফেরানোর মৌলিক কোনো দায়িত্ব আপনার নেই। স্বামী হিসাবে সে বরং নিজেই এ জন্য দ্বিগুণ দায় বহন করে। আপনি নিজ বিবেচনায় সব দিক সামাল দিন। তবে আপনার ‘না জানার ভান’ করছি কথাটি অনেক দামী। যদি সংসারে এভাবে মানুষ ভাবতো, তাহলে ৮০ ভাগ সমস্যা মাটি চাপা পড়ে যেত। তবে এ ভান করা পৃথিবীর কঠিন কাজ গুলোর একটি।

উত্তর দিয়েছেন- মুফতী উবায়দুর রহমান খান নদভী

আপনার মন্তব্য