মাসআলাটি জানালে উপকৃত হতাম

প্রশ্নোত্তর বিভাগCategory: ধর্মীয় জিজ্ঞাসামাসআলাটি জানালে উপকৃত হতাম
মাসআলাটি জানালে উপকৃত হতাম 1Muhammad Zafor asked 6 months ago

পরিচয় টা গোপন রাখলে ভালো হয়।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক

باسمه تعالى

মুহতারাম,

মুফতি সাহেব আমাকে নিম্নোক্ত বিষয়ের শরঈ বিধান জানিয়ে বাধিত করবেন।

আমি ইউনিভার্সিটির ছাত্র। টিউশনি থেকে প্রাপ্ত টাকাই আমার আয়ের উৎস। আমার পড়াশোনার ব্যয়ভার আমাকেই বহন করতে হয়। আমি যে টাকা আয় করি তা দিয়ে আমার খানা ও পোশাক-আশাক ইত্যাদির খরচ আলহামদুলিল্লাহ হয়ে যায় কিন্তু ইউনিভার্সিটির পড়াশোনা বাবদ খরচ বহন করাটা আমার সাধ্যের বাইরে। তাই প্রথম বর্ষে আমি কিছু প্রতিষ্ঠানে শিক্ষাবৃত্তির জন্য আবেদন করি। ভাগ্যক্রমে ২টা প্রতিষ্ঠানে আমি শিক্ষাবৃত্তির জন্য নির্বাচিত হয়। উল্লেখ্য যখন আমি আবেদন করি তখন আবেদনপত্রে ১টা বিষয় স্বীকারোক্তি দিয়েছিলাম যে আমি অন্য কোথাও শিক্ষাবৃত্তির জন্য নির্বাচিত হয়নি।

প্রথমে আমি ISSK (এটা ১টা বেসরকারি প্রতিষ্ঠান যেটা গরিব-মেধাবী শিক্ষার্থীদের প্রতি বছরই শিক্ষাবৃত্তি দিয়ে স্টুডেন্টদের সহায়তা করে থাকে) তে নির্বাচিত হয়। সেখানে প্রতি মাসে ১৫০০ টাকা করে আমি প্রথম ১ বছরের টাকা গ্রহণ করি এককালিন । পরে খুব সম্ভবত ২য় বর্ষে এসে IBBL ( ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেড এটিও গরীব মেধাবীদের যাকাত ফান্ড থেকে শিক্ষা বৃত্তি দিয়ে থাকে) এ বৃত্তির জন্যও নির্বাচিত হই। এখানে একটু বেশি টাকা দেয় ISSK এর চেয়ে।

উল্লেখ্য আমি একজন বিজ্ঞ মুফতি সাহেবকে জিজ্ঞেস করেছিলাম যে এ-ই টাকা গুলো গ্রহণের বিধান কি? উনি বলেছিল সেই ছাত্র যদি যাকাত খাওয়ার যোগ্যতা রাখে সে গ্রহণ করতে পারবে। পরে গ্রহণ করা হয়।

প্রথম বর্ষে আমি অনেক টাকা ঋণী ছিলাম তাই টিঊশনি এবং ISSK থেকে প্রাপ্ত টাকা দিয়ে ঋণমুক্ত হতে পারিনি যদ্দুর মনে হচ্ছে। সেজন্য এবং টাকার পরিমানও বেশি তাই IBBL থেকেও বৃত্তির টাকা গ্রহণ করি। গ্রহণ করে পড়াশোনা বাবদ খরচ করি আর ঋণের বোঝা আরেকটু হাল্কা করি। নিয়ত এ-ই ছিল যে IBBL এর বৃত্তিটাই রাখবো আর ISSK এর টা বাদ দিব। ইতিমধ্যে ISSK এর দুই কিস্তির টাকা আমি গ্রহণ করি । যাইহোক কিছু দিন জিন্দেগীতে খালি পেরেশানি আর পেরেশানি অনুভব করেছি তখন ভেবে দেখলাম আমার আয়ের সিংহভাগই মনে হয় সহিহ না। তাই IBBL রেখে খালেসভাবে তওবা করি যে আর ISSK এর টা আর গ্রহণ করব না।

উল্লেখ্য খুব সম্ভবত এমন ১টা স্বীকারোক্তি দিয়েছিলাম যে, ১টা শিক্ষাবৃত্তি গ্রহণ করলে অন্যটা গ্রহন করব না। তার পর যদিও আমি তা গ্রহণ করি।

উপরুক্ত বর্ননার ভিত্তিতে জানতে চাই,

১. আমি যে ২টা শিক্ষাবৃত্তি গ্রহণ করেছি এটা ঠিক হয়েছিল কিনা? যদি না হয় তাহলে এর কাফফারা বা পরকালে মুক্তির জন্য আমার করনীয় কি?

২. আমি যদি এই নিয়তে এখন ৩য় এবং সর্বশেষ কিস্তির ISSK এর অর্থ কর্য হিসেবে গ্রহণ করি যে ইংশা আল্লাহ ভবিষ্যতে আল্লাহ তাওফিক দিলে ISSK থেকে প্রাপ্ত অর্থ আমি তাদের ফেরত অথবা সওয়াবের নিয়ত না করে দান করে দিব তাহলে কি গ্রহণ করতে পারবো?

৩. আল্লাহ তাআলাই ভালো জানেন। আগামীতে ইউনিভার্সিটিতে হয়ত ১টা বড় মাপের টাকা দিতে হবে পড়াশোনা বাবদ তাই IBBL এর বৃত্তি ঠিক রেখে ISSK এর বাকি দুই কিস্তির টাকা গ্রহণের কোন সুরত আছে কিনা?

৪. আমি বৃত্তির টাকা দিয়ে কেবল পড়াশোনা বাবদ খরচ করি আর চেষ্টা করি এই টাকা দিয়ে যেন খানা খরচ অথবা পোশাকের খরচ না দেই। আমার এই কাজটা ঠিক কি না?

৫. দুনিয়াতে যেন আমার হাজত পুরা হয়ে যায় এবং আখেরাতে যেন আল্লাহর কাছে জবাবদিহি করতে না হয় এটার জন্য শরীয়ত আমার জন্য কি বিধান রেখেছে উপরোক্ত ক্ষেত্রে জানালে চিরকৃতজ্ঞ হতাম।